বিকাশের পিন হাতিয়ে যোগ-বিয়োগের ফাঁদে ফেলে অর্থ লোপাট

Bortoman Protidin

১৯ দিন আগে শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪


#

প্রথমে ফোনে কল করে উপবৃত্তির টাকা দেওয়ার প্রলোভন, পরে বিশ্বাস অর্জনের মাধ্যমে বিভিন্ন সংখ্যার সঙ্গে বিকাশ বা নগদের পিন নম্বর যোগ-বিয়োগ করতে বলে সেই ফল জেনে নেওয়া। অভিনব এ কৌশলে পিন নম্বর নিয়ে করা হয় অ্যাকাউন্টের অর্থ লোপাট।

এক আইনজীবীর মেয়েকে উপবৃত্তি দেওয়ার কথা বলে একইভাবে প্রতারণার মাধ্যমে বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে দুই লাখ ৮০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় মো. সাজ্জাত হাওলাদার (২৬) নামে চক্রের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।রাজধানীর হাতিরঝিল এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে তিনটি মোবাইল ফোন এবং তিনটি সিম উদ্ধার করা হয়।

ডিবি জানায়, ফরিদপুরের বাসিন্দা গ্রেপ্তার সাজ্জাত ঢাকায় রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। স্বল্প পরিশ্রমে অধিক টাকা উপার্জনের লক্ষ্যে এলাকার সমবয়সী বন্ধুদের সঙ্গে মিলে বিকাশ বা নগদের টাকা আত্মসাৎ করার কৌশল রপ্ত করেন তিনি। পরে সংঘবদ্ধ চক্র গড়ে তুলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন।রোববার দুপুরে রাজধানীর মিন্টু রোডে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব তথ্য জানান ডিবি প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

ঘটনার বিবরণে তিনি জানান, ভুক্তভোগী এক অ্যাডভোকেটের মেয়ে গতবছর এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। চলতি বছরের ২২ জানুয়ারি ওই অ্যাডভোকেটের ফোনে একটি মেসেজ আসে। সেখানে জানানো হয় ভালো রেজাল্টের জন্য তার মেয়ে প্রতিমাসে পাঁচ হাজার ২০০ টাকা করে উপবৃত্তি পাবেন। এজন্য তাদের দেওয়া ফোন নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়।

সে অনুযায়ী ২৩ জানুয়ারি নির্ধারিত নম্বরে কল করলে ফোনের ওপার থেকে বকশীবাজার শিক্ষা বোর্ডের অফিসের পরিচয় দেওয়া হয়। আইনজীবীর মেয়ে প্রতিমাসে পাঁচ হাজার ২০০ টাকা করে সাত মাস এবং এক বছর পর থেকে তিন বছর পর্যন্ত মাসিক ১২ হাজার ৫০০ টাকা করে উপবৃত্তি পাবেন বলে জানানো হয়।

এ সময় ফোনের ওপার থেকে ভুক্তভোগীর ব্যাংকের নাম, হিসাব নম্বর ও শাখার নাম জানতে চায় প্রতারক চক্রটি। পাশাপাশি একটি বিকাশ নম্বর ও মেয়ের মোবাইল নম্বর এবং এনআইডি নম্বর জানতে চায়। ভুক্তভোগী এসব তথ্য দিলে তাকে জানানো হয়, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কল করে আরও কিছু তথ্য চাইবে।  

পরে ভুক্তভোগীর বিকাশ নম্বরে বিভিন্ন মেসেজ আসে এবং একাধিক কোড ভুক্তভোগী সরবরাহও করেন। এক পর্যায়ে কল করে মোবাইলে ক্যালকুলেটর দেখতে বলা হয় এবং নির্দিষ্ট একটি নম্বরের সঙ্গে অন্য একটি নম্বর এবং বিকাশের পিন যোগ করে যোগফল জানতে চাওয়া হয়। ভুক্তভোগীও যোগফল জানান।

তখন তাকে ১২ ঘণ্টা তার বিকাশ লেনদেন বন্ধ রাখতে বন্ধ রাখতে বলা হয় এবং অ্যাকাউন্ট চেক করতেও নিষেধ করা হয়। সন্দেহ হলে ১০-১৫ মিনিট পর ভুক্তভোগী বিকাশ অ্যাকাউন্ট চেক করে দেখেন তার এক লাখ টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে। এভাবে পরে আরও এক লাখ এবং ৮০ হাজার টাকাসহ মোট দুই লাখ ৮০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক চক্রটি।

প্রতারণার বিষয়টি বুঝতে পেরে শাহবাগ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী। পরে মামলার তদন্তে নেমে সাজ্জাতকে গ্রেপ্তার করে ডিবির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ (দক্ষিণ)।হারুন অর রশীদ বলেন, চক্রটি বিভিন্ন ব্যক্তিকে টার্গেট করে কখনো বিকাশ বা নগদ অফিসের লোক, কখনো শিক্ষা বোর্ডের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে কল দিয়ে প্রতারণা করে আসছিল। টার্গেট ব্যক্তির বিশ্বাস অর্জন করে বিকাশ বা নগদ অ্যাকাউন্টের তথ্য নিয়ে টাকা লোপাট করত।

বিকাশ বা নগদ অ্যাকাউন্টের তথ্য, পাসওয়ার্ড অপরিচিত কাউকে না দিতে অনুরোধ করেছেন ডিবিপ্রধান। প্রতারিত হলে পুলিশের আশ্রয় নিতে অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।


global fast coder
ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  
#

জুমাতুল বিদায় মুসল্লিরা অশ্রুসজল চোখে আল্লাহর রহমত চাইলেন

#

বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার গুণগত মান বাড়ানোর জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি রাষ্ট্রপতির নির্দেশ

#

প্রধানমন্ত্রী ৭২ বিজিবি সদস্যকে পদক পরিয়ে দিলেন

#

সংসদ সদস্য হলেন ১২ চিকিৎসক

#

নিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০৩ শিক্ষার্থী শিক্ষক হলেন শাবিপ্রবির

#

প্রধানমন্ত্রী ৫ নারীর হাতে রোকেয়া পদক তুলে দিলেন

#

রমজানে দলের নেতাকর্মীদের ইফতার পার্টি না করার আহ্বান:কাদের

#

৩০০ আসনের জন্য ৩০০ নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটি গঠন করল ইসি

#

পটুয়াখালীতে সাড়া ফেলেছে ‘হেলিকপ্টার রেস্তোরাঁ’, ঘুরবে সব জেলা

#

ফিলিস্তিনে গণহত্যা বন্ধে মুসলিম উম্মাহকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

Link copied